শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন

গরু বিক্রেতারা অসহায় দালাল চক্রের দৌরাত্ন্যে

স্টাফ রিপোর্টার :: দিনাজপুর আসন্ন ঈদুল আজহায় গরু বিক্রি করতে গিয়ে প্রান্তিক গরু বিক্রেতারা অসহায় হয়ে পরেছে। গুরু বিক্রি করতে বিভিন্ন হাটে বাজারে বা বাড়ীতে দালাল চক্রের দৌরাত্ন্যে বিড়ম্বনায় পড়ছে। ঈদের এক মাস আগে থেকেই গ্রামগঞ্জে কোরবানির গরু কেনাবেচা হলেও এবারে কোরবানি ঈদের পুর্ব মূহুর্তে আতিমারি করোনা ভাইরাস এর জন্য সরকার চলতি জুলাই মাসের ০১ তারিখ হতে কঠোর বিধিনিষেধ গ্রহন করায় প্রান্তিক গরু বিক্রেতারা গরু বিক্রি করতে পারেনি।

কঠোর বিধিনিষেধ সিথিল হলে বিক্রেতারা গরু বিভিন্ন হাটে তুললে দালাল চক্রের কাছে জিম্মি হয়ে পড়ছে। সরেজমিনে গরু কেনাবেচার কয়েকটি হাট ঘুরে দালালদের এমন সিন্ডিকেট লক্ষ্য করা যায়। আজ ১৮ জুলাই বীরগঞ্জ উপজেলা ঘেষা ঠাকুরগাও এর গড়েয়া হাটে দেখা যায় শতাধিক দালাল নিদ্রিস্ট গ্রুপে ও একক ভাবে গরু বিক্রেতাদের সাথে গরু দরদাম করে এবং আশানুরূপ দামের চেয়ে অনেক কম দাম বলে, শুধু তাই নয় মূহুর্তেই সিন্ডিকেটের মধ্যে নিদ্রিস্ট গরুটির বলা দাম জানিয়ে দেয়া হয়। অন্যান্য দালাল রা সাধারণ খরিদ্দারের মত সেই গরুর দরদাম করে কিন্তু পুর্বের দাম পার করেনা। ষাট হাজার টাকার গরু সাতচল্লিশ বা আটচল্লিশ হাজার টাকার বেশি দালাল রা বলেনা। বাধ্য হয়ে কম দামেই বিক্রেতাকে গরু বিক্রি করতে হচ্ছে।

এদিকে হাত বদলের সাথে সাথেই দালাল রা সাধারণ মানুষ কে উলটা পালটা বুঝিয়ে চড়া দামে বিক্রি করছে। এ ব্যাপারে বীরগঞ্জের পলাশবাড়ী ইউনিয়ন থেকে আসা বিক্রেতা জয়নালের সাথে কথা হলে তিনি আক্ষেপ করে বলেন সকাল ১১ টা থাকি দুইঘন্টা হোয়য়া গেইল কয়জন দালাল গরুটাক নেয়ওনা, দামোও কয়না, মাইনষিক ভিড়িবাও দেয়না। পাশেই গরু নিয়ে দাঁড়ানো অন্যজনকে কথা বলাতে তিনি বললেন এক বছর গরুটাকে খাওয়ায় দাওয়ায় পালন করে যে টাকা লাভ করবো দালাল রা এক ঘন্টায় তার দ্বিগুণ লাভ করতেছে, এরকম চলতে থাকলে সাধারণ মানুষের গুরু পালনে অনিহা চলে আসবে

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি