শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:২০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
পটুয়াখালীতে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এর জন্মদিন পালিত লাঠির সঙ্গে পতাকা নিয়ে এলে খবর আছে: বিএনপিকে কাদের গাজীপুর সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর ৭৬ তম জন্মদিন উপলক্ষে দোয়া অনুষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আজ দুমকিতে বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ বিষয়ক সমন্বয় সভা সুন্দরগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার ৭৬ তম জন্মবার্ষিকী পালিত বাধ্য না হলে র‌্যাব গুলি ছোড়ে না: বিদায়ী ডিজি ময়মনসিংহের ভালুকায় সুতার কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, ২৫ লাখ টাকার ক্ষয়-ক্ষতি কল ড্রপ হলেই ক্ষতিপূরণ পাবেন গ্রাহক সাকিব-মোস্তাফিজ-সোহানের পর দল পেলেন তাসকিন

ছয় মাসে আমানত কমেছে ৪১৯ কোটি টাকা

নিউজ ডেস্ক :: নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর আমানত কমে যাচ্ছে। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত এই ৬ মাসে আমানত কমেছে ৪১৯ কোটি টাকা। গত বছরের জুন থেকে এ বছরের জুন পর্যন্ত এই এক বছরের হিসাবে আমানত কমেছে ৫১৭ কোটি টাকা। আমানত কমার পাশাপাশি বেড়েছে ঋণের স্থিতি। এদিকে ঋণ আদায়ও কমে গেছে।

বুধবার রাতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রকাশিত এক প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতি ৩ মাস পরপর ওই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

সূত্র জানায়, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান আমানতকারীদের টাকা দিতে পারছে না। একমাত্র পিকে হালদারের কারণে ৫টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে। এছাড়া কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক কর্তৃক অর্থ লুটের ঘটনাও ঘটেছে। এসব কারণে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতি গ্রাহকদের আস্থায় চিড় ধরেছে। যে কারণে এগুলোতে আমানত রাখার প্রবণতা কমে গেছে। তবে এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান খুব ভালো করেছে। দেশে বর্তমানে ৩৪টি আর্থিক প্রতিষ্ঠান কাজ করছে।

প্রতিবেদন থেকে দেখা যায়, গত বছরের জুনে আমানত ছিল ৪২ হাজার ৬০৩ কোটি টাকা। গত জুনে তা কমে দাঁড়িয়েছে ৪২ হাজার ৮৬ কোটি টাকা। গত এক বছরের ব্যবধানে আমানত কমেছে ৫১৭ কোটি টাকা। গত বছরের ডিসেম্বরে আমানত ছিল ৪২ হাজার ৫০৫ কোটি টাকা। আলোচ্য সময়ে আমানত কমেছে ৪১৯ কোটি টাকা।

আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো চলতি আমানত নিতে পারে না। শুধু মেয়াদি আমানত নিতে পারে। যে কারণে মেয়াদি আমানতই এদের প্রাণ। সেই মেয়াদি আমানতের হারও কমে যাচ্ছে। গত বছরের জুনে মেয়াদি আমানত ছিল সাড়ে ৯৮ শতাংশ। গত জুনে তা কমে ৯৭ দশমিক ৩৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

আলোচ্য সময়ে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর আমানত কমলেও ঋণের স্থিতি বেড়েছে। ঋণ আদায় কম হওয়ায় ঋণের স্থিতি বেড়েছে। গত এক বছরের ব্যবধানে ঋণের স্থিতি বেড়েছে ২ হাজার ৫৩ কোটি টাকা। গত বছরের জুনে মোট ঋণ ছিল ৬৭ হাজার ২৭ কোটি টাকা। গত জুনে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৯ হাজার ৮০ কোটি টাকা। ঋণ বাড়লেও আদায় কমেছে। গত বছরের অক্টোবর-ডিসেম্বর প্রান্তিকে ঋণ আদায় বেড়েছিল ২০ দশমিক ২৬ শতাংশ। চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ প্রান্তিকে বেড়েছিল ৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ। কিন্তু এপ্রিল-জুন প্রান্তিকে তা কমেছে ৯ শতাংশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি