বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
সুবর্ণচরে খামারিদের মাঝে ব্যবসা পরিকল্পনা প্রণয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেওয়ানগঞ্জে ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে বসত বাড়ীতে হামলার অভিযোগ চৌদ্দগ্রামে নিখোঁজের পরদিন বাড়ির পাশের পুকুরে মিলল শিশুর লাশ নেপাল থেকে কমে বিদ্যুৎ চায় বাংলাদেশ, চলছে দর কষাকষি ‘আর্থ-সামাজিক সূচকে অনেক উন্নত দেশের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ’ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে ৩ জামালপুরে স্কুলের পাঠদান বন্ধ রেখে ধর্মমন্ত্রীর কর্মী সমাবেশ সুবর্ণচরে গণধর্ষণের ঘটনায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মো. মিন্টু গ্রেপ্তার গাজীপুরে ৩৯তম আন্ত: জেলা কারাতে প্রতিযোগিতা সম্পন্ন জামালপুরের ফুটবল প্রেমীদের মাতিয়ে গেলেন ব্যারিস্টার সুমন

সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে নির্বাচন হবে: কাদের

নিউজ ডেস্ক :: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশের সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে নির্বাচন হবে। বিএনপিকে এ নিয়ে দাবিদাওয়া পেশ করতে হবে না। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আজ শুক্রবার সকালে তাঁর সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন।

নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে বিএনপির নির্বাচনের দাবি প্রসঙ্গে দলটির নেত্রী খালেদা জিয়ার কথা স্মরণ করিয়ে দেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, খালেদা জিয়া বলেছিলেন, পাগল ও শিশু ছাড়া কেউ নিরপেক্ষ নয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ধারণা অবান্তর বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

সড়ক পরিবহনমন্ত্রী বলেন, বিএনপির উদ্দেশ্যহীন ও ভুল রাজনীতিতে দলটির কর্মীরাই এখন তাঁদের নেতাদের ওপর ক্ষুব্ধ। বিএনপির আন্দোলনের রং-রূপ এ দেশের মানুষের অজানা নয়। কোনো জুতসই ইস্যু খুঁজে না পেয়ে বিএনপি ঠুনকো ইস্যু নিয়ে মাঠ গরমের অপচেষ্টা করছে। বিএনপির আন্দোলনের মৌসুমি হাঁকডাক নেতাদের ওপর কর্মীদের পুঞ্জীভূত ক্ষোভ প্রশমনের চেষ্টামাত্র।

ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতেই সরকার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করেছে বলে বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের জবাব দেন সেতুমন্ত্রী। তিনি বলেন, কোনো আইনের বলে নয়, শেখ হাসিনা সরকার টিকে আছে জনমানুষের আস্থা ও ভালোবাসায়। নির্বাচনে জনরায় মেনে নেওয়ার সৎসাহস শেখ হাসিনার আছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকার যেকোনো আইন প্রণয়ন করে জনস্বার্থে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ডিজিটাল নিরাপত্তার আইনগত কাঠামো রয়েছে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা মানে অন্যের অধিকার হরণ নয়। খেয়াল–খুশিমতো লেখা বা বলা নয়। বলা বা লেখার ক্ষেত্রে সত্যতা ও বস্তুনিষ্ঠতা থাকলে আইন কোনো বাধা নয়। তারপরও আইনের অপপ্রয়োগ যাতে না হয়, সে জন্য শেখ হাসিনা সরকার ইতিমধ্যে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি রাজনৈতিক দলের চরিত্র হারিয়ে এখন গুজব পার্টিতে পরিণত হয়েছে। গুজব ও অপপ্রচারই তাদের একমাত্র ভরসা। সে জন্যই বিএনপি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিরোধিতা করে প্রকারান্তরে আধুনিক প্রযুক্তির বিরোধিতা করছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, অপপ্রচার চালানো আর জনগণ থেকে নিজেদের আড়াল করে রাখা বিএনপির স্বভাব। তাই জনগণ বিএনপি থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির কাছে ক্ষমতা মানে দেশ ও জনগণের সম্পদ লুণ্ঠন। বিএনপির কাছে ক্ষমতা ভোগের বস্তু। তাই তো তাদের আমলে ভোগের পেয়ালা উপচে পড়েছিল।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: