বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:০৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিহ্মোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় দেশে পরিবেশ বান্ধব কৃষি ও শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের আহবান বোপমা সভাপতির হাতীবান্ধায় প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ মামলার মূল আসামী শাহিন গ্রেফতার সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বরিশালে আ.লীগের বিক্ষোভ মিছিল খেলাপি বৃদ্ধির শীর্ষে ২০ ব্যাংক বিমানবন্দরে ভক্তদের উদ্দেশ্যে যা বললেন শাকিব খান বরিশাল শেবাচিমে অধ্যক্ষের কার্যালয় ঘেরাও করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ তেলের দাম বাড়ায় ব্যবসায়ীরা সুযোগ নিচ্ছেন: বাণিজ্যমন্ত্রী বামদের হরতালে বিএনপির সমর্থন বিশ্ববাজারে তেলের দাম ছয় মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন

বরিশাল শেবাচিমে ঝুলছে ‘পাকিস্তানি’ সাইনবোর্ড

বরিশাল প্রতিনিধি :: দেশ স্বাধীন হয়েছে পঞ্চাশ বছর হলো। দেশ স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করেছে। স্বাধীন দেশে এখনো ‘গভ. অফ ইস্ট পাকিস্তান’ লেখা সর্তকীকরণ সাইনবোর্ড ঝুলছে। বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ( শেবাচিম ) বিদ্যুৎ সরবরাহের বাসবার ট্রাকিং সিস্টেমের বোর্ডে সাইনবোর্ড ঝুলছে।

১৯৬৪ সালের ৬ নভেম্বর থেকে বরিশাল শের-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ১৯৬৮ সালে এতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। স্থাপনকালীন এর নাম ছিল বরিশাল মেডিক্যাল কলেজ। যা পরবর্তীতে ১৯৭৭ সালে শের-ই-বাংলা আবুল কাশেম ফজলুল হকের নামে নামকরণ করা হয়।

হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে, পঞ্চতলার ভবনের চারটি সিড়ি রয়েছে। প্রত্যেকটি সিঁড়ির পাতলা পর্যন্ত ৫টি করে মোট ২১টি প্যানেল বোর্ড রয়েছে। এর মধ্যে ১১টি প্যানেল বোর্ডের সাইনবোর্ডে গভ. ইস্ট পাকিস্তন লেখা রয়েছে। চারটি প্যানেল বোর্ডে কোনো সাইবোর্ড নেই। ৬টিতে সাদা রং দিয়ে মুছে ফেলা হয়েছে।

সাদা বোর্ডের ওপর লাল রঙ দিয়ে লেখা সাইন বোর্ডের নিচে স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদের ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন জাতীয় শিশু দিবস’ এবং ২৬ মার্চের স্বাধীনতা দিবসের পোস্টার লাগানো হলেও বিষয়টি কারো নজরে আসেনি। বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত ও জাতীয় স্মৃতিসৌধের পোস্টারের উপরে রয়েছে গভ. অফ ইস্ট পাকিস্তান লেখা সতর্কীকরণ বোর্ডটি।

হাসপাতালে আসা রোগীর স্বজন নগরীর বাধ রোডের বাসিন্দা সাগর গভ. অফ ইস্ট পাকিস্তান লেখা বোর্ড দেখতে পেয়ে বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, এ ধরনের সাইনবোর্ড এখনো থাকতে পারে বিশ্বাস হচ্ছে না। বিষয়টি হাসপাতালের খেয়াল করা উচিত ছিল।

মহিউদ্দিন মানিক বীর প্রতীক ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তি‌নি বলেন, সাইনবোর্ড অপসারণের জন্য সবাইকে বলেছি। এ পর্যন্ত চারবার পরিচালক পরিবর্তন হলেও গভ. অফ ইস্ট পাকিস্তান লেখা সাইনবোর্ডটি পরিবর্তন করা হয়নি। এমন‌কি আইন-শৃঙ্খলা সভায় বিষয়টি তোলা হয়েছে।

এ বিষয়ে হাসপাতাল সংস্কার ও মেরামতসহ যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনাকারী গণপূর্ত অধিদপ্তরের সাব এসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার মো. ফিরোজ বলেন, সাবস্টেশন থেকে পাওয়ার বাসবার ট্রাকিং সিস্টেম বোর্ডে দেওয়া হয়।

সেখান থেকে হাসপাতালের বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। এ জন্য এটা বিপদজনক। তাই সাইনবোর্ড লাগানো রয়েছে। সাইনবোর্ডে ইস্ট পাকিস্তান লেখা রয়েছে কিনা খেয়াল করেননি বলে জানিয়েছেন তিনি। হাসপাতালের পরিচালক এসএম সাইফুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি দেখতেছি। এর বে‌শি কিছু বল‌তে তি‌নি নারাজ।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি