বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:২৬ পূর্বাহ্ন

ক্যান্সারে মৃত্যু হওয়া ছেলের জন্মদিনে বিনামূল্যে ওষুধ বিতরণ

ক্যান্সারে মারা যাওয়ায় আবির হোসেনের ২৫তম জন্মদিন ছিল আজ। ২০১৭ সালে মারা যাওয়া আবিরের স্মরণে ধামরাইয়ের গরিব-দুঃখী মানুষকে চিকিৎসা সেবা ও ওষুধ প্রদান করেন চিকিৎসক বাবা শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. শাহজাহান।

সোমবার সকাল থেকে ধামরাইয়ের মঙ্গলবাড়ি এলাকায় প্রায় দেড় হাজার গরিব দুঃখী মানুষ এসে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ও ওষুধ গ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে বাইশাকান্দা ইউপি চেয়ারম্যান মো. মাসুদুর রহমান মাসুদ রানা প্রধান অতিথি হিসাবে এ সেবামূলক কাজের শুভ উদ্বোধন করেন।

দুরারোগ্য ব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে অনার্স পড়ুয়া বড় ছেলে আবির ২০১৭ সালে মারা যান। তার নামে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ‘আবির ফাউন্ডেশনে’।

আবির হোসেনের ২৫তম জম্মদিন উপলক্ষে মাইকিং করে প্রচারণা চালিয়ে সোমবার দিনব্যাপী প্রায় দেড় হাজার রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান ও ওষুধ বিতরন করা হয়। শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. শাহজাহান মিয়ার নেতৃত্বে গণস্বাস্থ্য হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. ইশতিয়াক মোহাম্মদ আহমেদ চিকিৎসা দেন। এসময় তাদের সহায়তা করেন পল্লীচিকিৎসক সূর্যকান্ত ভৌমিক।

অশীতিপর বৃদ্ধা রোগী সুফিয়া বেগম বলেন,আমি দীর্ঘদিন ধরে পায়ের ব্যাথায় ভোগছিলাম। কিন্তু টাকা পয়সার অভাবে চিকিৎসা করতে পারিনি। মাইকে শুনলাম ডা. শাজাহান মিয়া বিনামুল্যে চিকিৎসা ওষুধ দিবেন, তাই ছুটে এলাম। মাগনা চিকিৎসা ও ওষধ পেয়ে আমি খুবই উপকৃত হলাম। আল্লাহপাকের কাছে দোয়া করি ডাক্তার শাজাহানের মৃত ছেলেকে আল্লাহ জান্নাতবাসি করুক। তাকেও দীর্ঘজীবী করুক।

শিশু সায়েম হোসেনের মা সাবিনা আক্তার বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমার ছেলে ঠাণ্ডাজনিত রোগে ভোগছে। আমার স্বামী দিনমজুর হওয়ায় ছেলের চিকিৎসা করাতে পারছিলাম না। মাইকে ঘোষণা শুনে এসে বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ পেলাম। আমি ডা. শাহজাহান মিয়া ও তার মৃত ছেলের জন্য দোয়া করি।

এব্যাপারে শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মো. শাহজাহান মিয়া যুগান্তরকে বলেন, আমার ছেলে ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। আজ তার জম্মদিন উপলক্ষে শিশু, বৃদ্ধাসহ প্রায় দেড় হাজার রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান ও ফ্রি ওষুধ বিতরণ করেছি। আমি মানুষের মাঝে আমার ছেলেকে বাঁচিয়ে রাখতে চাই। তাই আমি যতদিন বেঁচে থাকি প্রতিবছর তার জন্মদিনে আমি এ কার্যক্রম অব্যাহত রাখব ইনশাল্লাহ।

বাইশাকান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিএম মাসুদ রানা যুগান্তরকে বলেন, ডা. শাহজাহান মিয়ার মত সব ডাক্তাররা যদি বছরের একদিন করেও বিনামূল্যে চিকিৎসা প্রদান করতেন তাহলে অনেক অসহায় ও গরিব মানুষের উপকার হতো। তার এই ব্যাতিক্রমী উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি