শনিবার, ২২ Jun ২০২৪, ০৮:৪১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
শিবালয়ের টেপড়া বাসস্ট্যান্ডে যাত্রী ছাউনির বেহাল দশা, নজর নেই সড়ক প্রশাসনের মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধু বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থী নির্যাতন প্রতিরোধে মাদরাসা প্রধানদের সাথে পুলিশের মতবিনিময় সভা মালয়েশিয়ায় ১২৩ বাংলাদেশীসহ ২১৪ অবৈধ অভিবাসী গ্রেপ্তার বেনজিরের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ মডেল মির্জা মাহির প্রথম মিউজিক ভিডিও “কিশোরী রোদ” জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এর সাংগঠনিক সম্পাদক আমান ডেঙ্গু জ্বর আক্রান্ত শিবালয়ে ভূমি সেবা সপ্তাহ শুরু উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা রাজশাহী নগরীতে পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ২৫ চৌদ্দগ্রামে ভূমি সেবা সপ্তাহ’র ২০২৪ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

বাঙলার জাগরণ এ সংবাদ প্রকাশের পর খাদেরগাঁও স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি পদত্যাগ 

শামীম আহম্মেদ জয় , মতলব (চাঁদপুর) : সরকারি নিয়মনীতি অনুসরণ না করে চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার খাদেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হিসাবে ফারুক বিন জামান কে নির্বাচিত করেন উপজেলা শিক্ষা অফিস। সভাপতি নির্বাচন করা নিয়ে এলাকায় বিতর্ক ওঠে। সভাপতি হিসাবে যাকে নির্বাচিত করার পরপরই বিতর্ক হয় তিনি ( ফারুক বিন জামান) স্নাতক ডিগ্রিধারী নয়। পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর অনুসারী হিসেবে প্রভাব বিস্তার করেই সম্পুর্ণ অনিয়মের মাধ্যমে ফারুক বিন জামান কে সভাপতি নির্বাচন করা হয়েছিলো। এ বিষয়ে গত ২৫ সেপ্টেম্বর তারিখে ‘ জাতীয় দৈনিক বাঙলার জাগরন পএিকায়  সংবাদ প্রকাশের পরে খাদেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নির্বাচনে বিতর্ক ওঠায় উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমুন নাহারের জালিয়াতির মাধ্যমে পিছনের তারিখ ব্যবহার করে সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেন ফারুক বিন জামান। এটা নিয়ে ও চলছে লুকোচুরি। উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমুন নাহার বলেন ১০ সেপ্টেম্বর তারিখে পদত্যাগ করেন আর এদিকে খাদেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রৌশনারা বেগম তা জানেন না বলে জানান।
প্রধান শিক্ষক রৌশনারা বেগম বলেন, পদত্যাগের বিষয়ে আমি কিছুই জানি না এখন আপনার মাধ্যমে জানলাম। এদিকে খাদেরগাঁও ইউপির ক্লাস্টার ও সহকারী শিক্ষা অফিসার সেলিনা বেগম বলেন, পদত্যাগের বিষয়টি মিমাংসা হয়ে গেছে এবং সহ সভাপতি কে ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করতে নির্দেশ দেওয়া হলেও প্রধান শিক্ষক রৌশনারা বেগম এ রিপোর্ট লেখা পযন্ত পদত্যাগের বিষয় অস্বীকার করেন। অথচ গত ২৪ সেপ্টেম্বর তারিখে মতলব দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রেনু দাস, উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমুন নাহার, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রৌশনআরা কে সভাপতি নির্বাচনে অনিয়ম করার বিষয়ে প্রশ্ন করলে তখনও তারা কেউ স্বীকার করেননি ঐ বিদ্যালয়ের সভাপতি নির্বাচনে অনিয়ম হয়েছে বা সভাপতি ফারুক বিন জামান পদত্যাগ করেছেন।
তবে এ রিপোর্ট লেখার মুহূর্তে উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমুন নাহার টেলিফোনে বলেন, ফারুক বিন জামান গত ১০ সেপ্টেম্বর তারিখে সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করেন আর ১২ তারিখে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ সভাপতি নির্বাচনে তিনি অংশ গ্রহণ করেননি। তিনি আরও বলেন, খাদেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নির্বাচনের বিতর্কের সাথে প্রধান শিক্ষক ও নারায়ণপুর এলাকার ক্লাস্টার সেলিনা বেগম দায়ী।আমি শুধু সাক্ষর করেছি।
অনুসন্ধান করে জানা গেছে, ফারুক বিন জামান কে গত ৬ সেপ্টেম্বর তারিখে মতলব দক্ষিণ উপজেলার শ্রেষ্ঠ সভাপতি নির্বাচিত করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বাছাই কমিটির সভাপতি রেনু দাস ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও বাছাই কমিটির সদস্য সচিব নাজমুন নাহার।
এদিকে খাদেরগাঁও সহ মতলব দক্ষিণ উপজেলায় বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে তাকে কিভাবে সভাপতি নির্বাচন করা হয়েছিলো। এই অনিয়মের সাথে ফেঁসে যাবার  ভয়ে পিছনের তারিখ দিয়ে পদত্যাগ পত্র গ্রহণ করে উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমুন নাহার। বিভিন্ন সুত্রে জানা গেছে উপজেলা শিক্ষা অফিসার নাজমুন নাহার, সহকারী শিক্ষা অফিসার ও খাদেরগাঁও ইউপির ক্লাস্টার সেলিনা বেগম এবং বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা রৌশনারা বেগম কোনো কাগজপত্র যাচাই-বাছাই না করে অনিয়মের মাধ্যমেই ফারুক বিন জামান কে বিদ্যালয়ের সভাপতি এবং গত ৬ সেপ্টেম্বর উপজেলার শ্রেষ্ঠ সভাপতি নির্বাচিত করেন।
উল্লেখ্য, সরকারি নীতিমালা ভঙ্গ করে মতলব দক্ষিণ উপজেলার খাদেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নির্বাচন ও উপজেলার শ্রেষ্ঠ সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার অনিয়ম ওঠেছিল। বিষয়টি নিয়ে ঐ বিদ্যালয়ের অভিভাবক ও এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। সম্প্রতি পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রীর প্রভাব খাটিয়ে গঠনতন্ত্র উপেক্ষা করে জোরপূর্বক ফারুক বিন জামান খাদেরগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মনোনীত হন।
সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটি গঠন বিষয়ে বর্তমান আইন অনুযায়ী , গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক জারীকৃত প্রজ্ঞাপনে স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে যে, প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক সংশ্লিষ্ট প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিকটবর্তী কোন সরকারী/বেসরকারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক/শিক্ষিকার মধ্যে শিক্ষক প্রতিনিধি নেয়ার নিয়ম রয়েছে।
প্রজ্ঞাপনে স্পষ্ট আরও উল্লেখ রয়েছে যে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি পদে নির্বাচন করতে হলে প্রার্থীকে অবশ্যই অনার্স (স্নাতক) পাশ হতে হবে। একই সাথে প্রার্থীর সন্তানকেও ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী হতে হবে। এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির (এসএমসি) সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার ক্ষেত্রে প্রাথমিক যোগ্যতা হিসেবে সভাপতি প্রার্থীর সন্তানকে অবশ্যই ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হতে হবে। এছাড়া বিদ্যোৎসাহী সদস্যদেরও সন্তান বিদ্যালয়ের ছাত্র/ছাত্রী হতে হবে এবং তাদেরও শিক্ষাগত যোগ্যতা নূন্যতম এসএসসি হতে হবে। কমিটির সভাপতিকে অবশ্যই স্নাতক ডিগ্রিধারী হতে হবে। এমন  শর্ত যুক্ত করে প্রাইমারী স্কুলের ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠনে নতুন নীতিমালা জারি করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রজ্ঞাপনে সু-স্পষ্ট বলা আছে কোন সরকারী প্রাথমিক বিদালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি দ্বিতীয় বারের পরে আর তৃতীয় বার হতে পারবে না।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: