শনিবার, ২২ Jun ২০২৪, ০৭:৫০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
শিবালয়ের টেপড়া বাসস্ট্যান্ডে যাত্রী ছাউনির বেহাল দশা, নজর নেই সড়ক প্রশাসনের মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধু বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থী নির্যাতন প্রতিরোধে মাদরাসা প্রধানদের সাথে পুলিশের মতবিনিময় সভা মালয়েশিয়ায় ১২৩ বাংলাদেশীসহ ২১৪ অবৈধ অভিবাসী গ্রেপ্তার বেনজিরের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ মডেল মির্জা মাহির প্রথম মিউজিক ভিডিও “কিশোরী রোদ” জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এর সাংগঠনিক সম্পাদক আমান ডেঙ্গু জ্বর আক্রান্ত শিবালয়ে ভূমি সেবা সপ্তাহ শুরু উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা রাজশাহী নগরীতে পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ২৫ চৌদ্দগ্রামে ভূমি সেবা সপ্তাহ’র ২০২৪ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

পেটে লাথি দেওয়ার চেষ্টা করলে পরিণাম ভালো হবে না

রাজনৈতিক সমস্যার সমাধানে হরতাল-অবরোধ না দিয়ে আলোচনার মাধ্যমে সুষ্ঠু সমাধানের আহ্বান জানিয়েছেন বাস-মিনিবাস সড়ক পরিবহন শ্রমিক নেতারা। তাদের দাবি, পরিবহন শ্রমিকরা তাদের চাকরি হারানোর ঝুঁকিতে আছে। এভাবে হরতাল-অবরোধ চলতে থাকলে মালিকপক্ষ বসিয়ে রেখে শ্রমিকদের বেতন দেবে না। যার ফলে ভয়াবহ সমস্যায় পড়বে দেশের হাজারো পরিবহন শ্রমিক ও তাদের পরিবার।

বুধবার (১ নভেম্বর) বেলা ১০টায় মহাখালী বাস টার্মিনালের হরতাল-অবরোধবিরোধী মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে শ্রমিক নেতারা এসব কথা বলেন।

এসময় ঢাকা জেলা বাস মিনিবাস সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি ইউসুফ আলী মৃদা বলেন, আমাদের শ্রমিক ভাইয়েরা অনেক কষ্টে আছে। কোনো হরতাল-অবরোধ হানাহানি চাই না। আমরা চাই আলোচনা বা অন্য কোনো প্রক্রিয়ায় আপনাদের রাজনৈতিক বিষয় মীমাংসা করুন। না হলে সামনের দিনে আরো ভয়াবহ অবস্থা তৈরি হবে। আমরা কোনো রাজনৈতিক দলের প্রতিপক্ষ নই। আমরা সাধারণ মানুষ। আমরা চাই দেশে শান্তি।

তিনি বলেন, আমরা কোনো হরতাল-অবরোধ মানব না। আমাদের গাড়ি চলছে, এমনকি সামনের দিনেও চলবে। বাস বন্ধ রাখলে আমাদের পেট চলবে না। শত শত শ্রমিক এবং তাদের পরিবার না খেয়ে থাকবে। দয়া করে আমাদের এই পরিস্থিতির মুখোমুখি করবেন না।

ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জামাল মিয়া বলেন, আমরা এপারের যাত্রী ওপারে নিয়ে যাই, ওই পাড়ের যাত্রী এপারে নিয়ে আসি। এভাবেই আমাদের পেট চলে। এখন যদি কেউ আমাদের পেটে লাথি দেওয়ার চেষ্টা করে, এর পরিণাম ভালো হবে না।

তিনি আরও বলেন, আমাদের শ্রমিকরা অনেক পরিশ্রম করে। অন্যান্য অফিস-আদালতে নির্ধারিত ৮ ঘণ্টা ডিউটি। আমাদের চালক শ্রমিকরা ২৪ ঘণ্টাই সড়কে থাকে। এখানে ঘুম-আরামের জায়গা নেই, বাসে বসেই খায় এবং বাসেই একটু ঘুমায়। পরিবার আত্মীয়-স্বজন রেখে সাধারণ মানুষের পরিবহন সেবায় তারা তাদের সারাটা জীবন সড়কে কাটিয়ে দেয়। অনুগ্রহপূর্বক কর্মসূচি দেওয়ার আগে তাদের কথা চিন্তা করবেন।

মিছিল ও সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা বাস মিনিবাস সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. মোতালেব, কোষাধ্যক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ রহিম উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক জামাল মিয়া, প্রচার সম্পাদক মো. সুমন মিয়াসহ আরও অনেকে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: