মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪৯ অপরাহ্ন

নরসিংদীতে জ্বীন সেজে প্রতারনার মাধ্যমে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে গ্রেফতার ২

মোঃ রাসেল মিয়া, নরসিংদী প্রতিনিধি :: নরসিংদীতে জ্বীন সেজে প্রতারনার মাধ্যমে টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুইজনকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। সোমবার (০৯ নভেম্বর) ভোরে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো নরসিংদী জেলার মনোহরদী থানার বীরগাঁও গ্রামের মৃত. ইসমাইল মিয়ার ছেলে কথিত জ্বীন সোনাম উদ্দিন (৮০) ও নরসিংদী সদর থানার পশ্চিম দত্তপাড়া মহল্লার আসাদ মিয়ার ছেলে সাদিকুর রহমান ওরফে সিদ্দিক (৪৪)।

নরসিংদী জেলা গোয়েন্দা শাখার পুলিশ পরিদর্শক ও জেলা পুলিশ এর মিডিয়া সমন্বয়ক রুপণ কুমার সরকার সন্ধ্যায় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান, গত ৩ অক্টোবর নরসিংদী শহরের সিএন্ডবি রোডের একটি চায়ের দোকানে বসে চা পান করছিলেন ফারুক আহমেদ নামে এক ব্যক্তি।

এসময় পাশে বসে থাকা সাদিকুর রহমান সিদ্দিক (প্রতারক) বলে উঠেন ১৪ বছর মামলা চালাইয়া জায়গার কোন হদিস পাইলাম না, সেই মামলার কাগজ পাইলাম সোনাম উদ্দিন হুজুরের কাছে গিয়ে।

ফারুক আহমেদ এর জমিজমা নিয়ে বিরোধ থাকায় ছদ্মবেশি প্রতারক সিদ্দিকের কথা বিশ্বাস করেন এবং তার জমি নিয়া বিরোধ থাকার বিষয়ে প্রতারক সিদ্দিক এর সাথে কথা বলেন। এসময় প্রতারক সিদ্দিক একটা মোবাইল নম্বরে ফোন করে সোনাম উদ্দিন হুজুরের সাথে কথা বলায় এবং কথিত হুজুর ফারুক আহমেদকে সরাসরি যেতে বলেন।

পরে ৪ অক্টোবর ফারুক আহমেদ প্রতারক সিদ্দিকের সাথে মনোহরদীর বীরগাঁও এলাকায় কথিত জ্বীনের বাদশা সোনাম উদ্দিনের কাছে যায়। প্রতারক জ্বীনের বাদশা সোনাম উদ্দিন আলখাল্লা পোশাক পড়ে জ্বীন সেজে কন্ঠ নকল করে কথা বলেন এবং ফারুকের মনে বিশ্বাস স্থাপন করায়। জমি ও ভালো চাকরী পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে বিভিন্ন ধাপে ফারুকের নিকট হতে ৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় কথিত হুজুর। বেশ কিছুদিন অতিবাহিত হওয়ার পরও কথামত কাজ না হওয়ায় ফারুক আহমেদ এর মনে সন্দেহ সৃষ্টি হয়।

গত ০৮ নভেম্বর এ ঘটনায় নরসিংদীর পুলিশ সুপার কার্যালয়ে মৌখিক অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী ফারুক আহমেদ। পরে ডিবির এসআই তাপস কান্তি রায় তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় আসামীদের অবস্থান শনাক্ত করেন এবং অভিযান পরিচালনা করে মনোহরদী থানাধীন বীরগাঁও থেকে প্রতারক জ্বীনের বাদশা সোনাম উদ্দিন ও সাদিকুর রহমান ওরফে সিদ্দিককে গ্রেফতার করেন।

এসময় প্রতারকদের নিকট হতে নগদ ৬০ হাজার টাকা, আংটি, পাথর, আলখাল্লা পোশাক উদ্ধার করা হয়। একটি সংঘবদ্ধ প্রতারকচক্র জ্বীনের বাদশা সেজে প্রতারনা করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে জেলা পুলিশের নিকট অভিযোগ রয়েছে বলেও জানায় পুলিশ।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি