মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ০২:৫৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম
চাটখিলে ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকনকে অব্যাহতি দেয়ায় আনন্দ মিছিল  চৌদ্দগ্রামে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে গৃহবধূর মৃত্যু ট্রেনে পায়ের আঙুল কাটা পড়েছে অধ্যাপক আনু মুহাম্মদের ঈদে ১৪ টি মিউজিক ভিডিও মুক্তি পেয়েছে প্রিন্স খানের চাটখিলে পৈত্রিক সম্পত্তি জবরদখলে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তপ্তদেহ শীতল করতো গাছের নিচে বসেই, গাছ না থাকায় এত গরম সরকার হজযাত্রীদের সর্বোত্তম সেবা দিতে বদ্ধপরিকর-ধর্মমন্ত্রী দেশের স্বার্থ বিরোধী কাজের সাথে যারাই জড়িত, তারাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী – আনু মুহাম্মদ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে  প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে হবে- সুবর্ণচর উপজেলা আ.লীগ হাতিয়ার উন্নয়নে সরকারের স্মার্ট বাংলাদেশ কর্মসূচিকে কাজে লাগানো হবে – মোহাম্মদ আলী এমপি

মৌসুমের প্রথম শৈত্যপ্রবাহ আসছে

নিউজ ডেস্ক :: চার দিন ধরে জমে থাকা কুয়াশা আরও ঘন হয়ে উঠেছে। আজ সকালে সূর্যের এক ঝলক দেখা মিললেও দিনের তাপমাত্রা খুব বেশি পরিবর্তন হয়নি। তবে শীতের অনুভূতি বেড়েই চলেছে। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, চলতি কুয়াশাচ্ছন্ন প্রকৃতি আরও দু’দিন স্থায়ী হতে পারে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ওপর দিয়ে আগামী ১৭ ও ১৮ ডিসেম্বর চলতি শীত মৌসুমের প্রথম শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। শৈত্যপ্রবাহের আগে দেশের কোথাও কোথাও হালকা বৃষ্টি হতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশীদ বলেন, ‘আরব সাগর থেকে আসা জলীয়বাষ্পপূর্ণ বায়ুর কারণে কুয়াশা আরও দু-একদিন থাকতে পারে। সোম-মঙ্গলবার থেকে কুয়াশা কেটে গিয়ে সূর্যের দেখা পাওয়া যেতে পারে।’

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, সোমবার সূর্যের দেখা পাওয়ার পর তাপমাত্রা কিছুটা বাড়লেও ধীরে ধীরে তাপমাত্রা আবারও কমতে থাকবে। বিশেষ করে পশ্চিমা লঘুচাপ ছড়িয়ে পড়ায় সারাদেশেই শীতের অনুভূতি বাড়তে পারে। তাপমাত্রা দ্রুত কমে উত্তরাঞ্চলে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ শুরু হতে পারে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার দেশের সবচেয়ে কম তাপমাত্রা ছিল সীতাকুণ্ডে ১৪ দশমিক ৩ এবং রাজধানীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

উত্তরাঞ্চলসহ বিভিন্ন স্থানে ঘন কুয়াশার কারণে শীতের তীব্রতা বেড়েছে। সাথে আছে হিমেল বাতাস।

কুয়াশার চাদরে ঢাকা উত্তরের জেলা রংপুর। দুপুরেও দেখা মিলে না সূর্যের। হিমেল হাওয়ায় বেড়েছে শীত। দিনের বেলায়ও হেড লাইট জ্বালিয়ে চলছে যানবাহন। সহায়-সম্বলহীন হতদরিদ্ররা পড়েছেন বিপাকে।

এলাকাবাসীরা জানান, অতিরিক্ত ঠাণ্ডা পড়েছে, সে ঠাণ্ডায় খুবই কষ্ট হচ্ছে। কাপড়-চোপড় গায় দিলেও ঠাণ্ডা যাচ্ছে না। বাচ্চাকাচ্চা নিয়ে অনেক কষ্টে আছি।

সিরাজগঞ্জেও ক’দিন ধরে সূর্যের দেখা মিলছে না। শীত বস্ত্রের অভাবে কষ্টে আছেন নিম্ন আয়ের মানুষ।

স্থানীয়রা জানান, গেলো বারের চেয়ে আরও বেশি শীত পরেছে এবার। শীতের কম্বল বা গরম কাপড় তো আমরা পাই না, কেনার মতোও সামর্থ্য নাই।
ঠাণ্ডায় কাহিল গাইবান্ধার খেটে খাওয়া মানুষ। কাজ করতে না পেরে অনেক শ্রমিক শহরমুখী হচ্ছেন। বেশি বিপাকে নদী তীরবর্তী বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে বসবাসকারী হতদরিদ্ররা।

চুয়াডাঙ্গায় তিন দিন ধরে বিকেল থেকে ঘন কুয়াশায় ঢেকে যাচ্ছে চারদিক। দিনে তাপমাত্রা কিছুটা সহনীয় হলেও কমে যায় রাতে। তাপমাত্রার ওঠানামায় শিশু ও বৃদ্ধরা শীতজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। পুরনো কাপড়ের দোকানে ভিড় বেড়েছে নিম্নআয়ের মানুষের।
এসএ


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: