শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৪৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম
ঈদে ১৪ টি মিউজিক ভিডিও মুক্তি পেয়েছে প্রিন্স খানের চাটখিলে পৈত্রিক সম্পত্তি জবরদখলে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তপ্তদেহ শীতল করতো গাছের নিচে বসেই, গাছ না থাকায় এত গরম সরকার হজযাত্রীদের সর্বোত্তম সেবা দিতে বদ্ধপরিকর-ধর্মমন্ত্রী দেশের স্বার্থ বিরোধী কাজের সাথে যারাই জড়িত, তারাই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী – আনু মুহাম্মদ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে  প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে হবে- সুবর্ণচর উপজেলা আ.লীগ হাতিয়ার উন্নয়নে সরকারের স্মার্ট বাংলাদেশ কর্মসূচিকে কাজে লাগানো হবে – মোহাম্মদ আলী এমপি সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে ৩৯ বছর পর জমি ফিরে পেলেন যদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা পরিবার শিবালয়ে ১৫তম  মাই টিভির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত  ক্রীড়াবিদরা দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনছে- ধর্মমন্ত্রী

জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে আন্দোলনের বিকল্প নেই

নিউজ ডেস্ক :: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে হলে আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই। আমাদের নেতার দিকে গোটা জাতি তাকিয়ে আছে পরিবর্তনের জন্যে তার নেতৃত্বে দেশের জনগণকে জাগিয়ে তুলতে হবে।

এটা অত্যন্ত জরুরি। জনগণকে জাগিয়ে তুলতে না পারলে কোনো দিন কোনো আন্দোলনই সফল হয় না। তাদের জাগরণের মধ্য দিয়েই অতীতে দেশের সব বিজয় আমরা অর্জন করেছি। আমরা বিশ্বাস করি সেই জাগরণের মধ্য দিয়ে আমরা আমাদের পরিবর্তন নিয়ে আসতে পারবো।
বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বিএনপির আয়োজিত ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এ ভার্চ্যুয়াল আলোচনা সভায় লন্ডন থেকে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ৪৯ বছর পরে গোটা জাতি আজ বিভক্ত। বিভাজন শুধু রাজনৈতিক ক্ষেত্রে নয়, প্রশাসনিক এবং সামাজিক ক্ষেত্রেও। এখন আর কেউ আওয়ামী লীগের কারো সঙ্গে বিএনপির বা অন্য দলের কারো বিয়ের কথাও চিন্তা করে না। দিজ ইজ দ্য রিয়ালিটি। আজকে সর্বক্ষেত্রে আমরা এটা দেখছি।

তিনি বলেন, আজকে একদলীয় শাসনব্যবস্থার যে ছদ্মবেশ, এ ছদ্মবেশ থেকে দেশকে বের করে আনতে হলে, জনগণের অধিকারকে প্রতিষ্ঠা করতে হলে আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই।

সম্প্রতি প্রশাসন ও বিচার বিভাগের বিচারকদের রাজপথে মানববন্ধনে অংশ নেওয়ার বিষয়টি তুলে ধরে বিএনপি মহাসচিব বলেন, দুর্ভাগ্য যখন আমরা দেখি প্রশাসনিক কর্মকর্তা যাদের বেতন হয় জনগণের ট্যাক্সের টাকা দিয়ে, সেটা সব ধরনের প্রশাসনের কথা বলছি আমি। তারা যখন রাজপথে বিভিন্ন জায়গায় একটা বিশেষ দলের পক্ষে সভা করেন, মিছিল করেন, কথা বলেন এবং জনগণকে ধমক দেন। এ যে জনগণকে ধমক দিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করা এটা পুরোপুরি স্বৈরতন্ত্র। আজকে সেই ফ্যাসিবাদ দেশে চেপে বসেছে। সেই ফ্যাসিবাদকে সরাতে হলে, স্বৈরতন্ত্রকে সরাতে হলে আন্দোলন ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে ও প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানির সঞ্চালনায় ভার্চ্যুয়াল সভায় আরও বক্তব্য রাখেন স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, সেলিমা রহমান ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: