মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ০১:৫২ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধু বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থী নির্যাতন প্রতিরোধে মাদরাসা প্রধানদের সাথে পুলিশের মতবিনিময় সভা মালয়েশিয়ায় ১২৩ বাংলাদেশীসহ ২১৪ অবৈধ অভিবাসী গ্রেপ্তার বেনজিরের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ মডেল মির্জা মাহির প্রথম মিউজিক ভিডিও “কিশোরী রোদ” জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এর সাংগঠনিক সম্পাদক আমান ডেঙ্গু জ্বর আক্রান্ত শিবালয়ে ভূমি সেবা সপ্তাহ শুরু উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা রাজশাহী নগরীতে পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ২৫ চৌদ্দগ্রামে ভূমি সেবা সপ্তাহ’র ২০২৪ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন কবে, জানালেন ওবায়দুল কাদের

হোস্টেলে রাবি ছাত্রীর আত্মহত্যা, রহস্য উদ্ঘাটন

নিউজ ডেস্ক :: মোবাসসিরা তাহসিন ইরা নামে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আইন বিভাগের এক ছাত্রী আত্মহত্যা করেছেন। রোববার (৩১ জানুয়ারি) ভোর রাত ৩টার দিকে নগরীর মির্জাপুর এলাকায় একটি আবাসিক ছাত্রী হোস্টেল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে মতিহার থানার পুলিশ।

রাবি ছাত্রীর এই আত্মহত্যার পেছনে প্রেম সংক্রান্ত ব্যাপার রয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হয়েছেন পুলিশ। ইরার পরিবারও বলছে, একই কথা।

ইরার বাড়ি নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলায়। তার বাবা অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা ও মা একটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। তিন বোনের মধ্যে ইরা দ্বিতীয়।

রোববার (৩১ জানুয়ারি) তার বাবা-মায়ের সঙ্গে মরদেহ নিতে রাজশাহীতে আসেন ভগ্নিপতি ইজাজ আহমেদ। তিনি বলেন, ইরার এক বান্ধবী ফোন করে জানায় সে আত্মহত্যা করেছে। ইরার সঙ্গে সাব্বির নামের এক ছেলের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তিনি থাকেন চট্টগ্রামে। তাদের প্রেমের সম্পর্কে ঝামেলা চলছিল, কিন্তু আত্মহত্যা করবে এমনটা আমরা কখনও ভাবিনি।

ইজাজ আহমেদ আরও বলেন, ইরার সঙ্গে ওই ছেলের প্রেমের সম্পর্ক ৩-৪ বছরের। ইরা যখন ময়মনসিংহ গার্লস ক্যাডেট কলেজে পড়তো, তখন হয়তো ওই ছেলের সঙ্গে তার সম্পর্ক তৈরি হয়। এ ঘটনায় আত্মহত্যায় প্ররোচণার মামলা করা হবে বলেও তিনি জানান।

তদন্ত কর্মকর্তা ও মতিহার থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শিউলি খানম বলেন, আমরা জানতে পেরেছি প্রেমঘটিত কারণে ওই ছাত্রী আত্মহত্যা করেছেন। আত্মহত্যার আগে ছাত্রীনিবাসে কারও সঙ্গে মোবাইল ফোনে উচ্চস্বরে কথা বলেছেন, এমন তথ্য জেনেছি। তার মোবাইল ফোনটি জব্দ করা হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কার সঙ্গে কী ধরনের কথাবার্তা হয়েছে এবং মোবাইলের কল রেকর্ড সংগ্রহ করা হচ্ছে। এসব থেকে আরও তথ্য জানা যাবে।

ছাত্রীনিবাসে থাকা এক ছাত্রী বলেন, তাদের সম্পর্কে প্রায়ই ঝামেলা হতো। মাঝে মাঝেই তারা ঝগড়া করতেন। ইরা এ নিয়ে হতাশায় থাকতেন, মন খারাপ করে থাকতেন।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রোববার ইরার মরদেহের ময়নাতদন্ত হয়। পরে তার মরদেহ নিজ এলাকায় নিয়ে যাওয়া হয়।

এনএস/


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: