মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৬:০৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
মানিকগঞ্জের শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত হলেন শিবালয় থানা অফিসার ইনচার্জ রউফ সরকার শহীদ আহ্সান উল্লাহ মাস্টারের শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন বাবুর শপথ – মোবারক হোসেন দেলোয়ার চৌদ্দগ্রামে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যাত্রীবাহী বাস খাদে নিহত-৫, আহত-১৫ বিদেশি ঋণের প্রকল্প দ্রুত শেষ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর চৌদ্দগ্রামে জায়গা জমি সংক্রান্ত বিরোধে ছুড়িআঘাতে যুবক নিহত, গ্রেফতার-২ নোয়াখালী সুবর্ণচরে গাভীর সিজারিয়ান অপারেশন নোয়াখালী সদরে হজ্ব প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত চৌদ্দগ্রামে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থীদের মনোনয়ন পত্র জমা বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যান পদে ৩ প্রার্থীসহ ৯জনের মনোনয়নপত্র দাখিল

ফুলবাড়ীতে বাড়ছে করোনার সংক্রমণ সচেতনতার বালাই নেই

 অমর চাঁদ গুপ্ত, ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে দিন দিন বাড়ছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আক্রান্তের সংখ্যা। প্রথম দিকে শুধু বাহিরে থেকে আসা মানুষের দেহে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেলেও এখন শহর ছেড়ে কোথাও যায়নি এমন ব্যক্তিরাও করোনা শনাক্ত হচ্ছেন। তবুও বালাই নেই স্বাস্থ্যবিধির। স্বাস্থ্যবিধি মানতে কঠোর অবস্থানে থাকতে বলা হলেও প্রশাসনের ভূমিকা নিরব। মাইকিংয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থেকে যাচ্ছে প্রশাসনের কঠোর ভূমিকা।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাসানুর হোসেন জানিয়েছেন উপজেলায় এ পর্যন্ত শনাক্ত কোভিড-১৯ রোগীর সংখ্যা ১৩ জন। সুস্থ হয়েছেন ১ জন।

আক্রান্তদের মধ্যে উপজেলার পৌরশহরের কাঁটাবাড়ীতে একজন, পূর্ব গৌরীপাড়ায় একজন, প্রফেসরপাড়ায় একজন, দৌলতপুর ইউনিয়নে চারজন, আলাদীপুর ইউনিয়নে তিনজন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন চিকিৎসহসহ তার স্ত্রী এবং ফুলবাড়ীর বাহিরের দুইজন করোনা শনাক্ত হয়েছেন। এরমধ্যে একজন নারীসহ তিনজন সুস্থ হয়েছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, ১৪ এপ্রিল উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের বারাইপাড়া গ্রামে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। প্রথম দিকে শুধু ফুলবাড়ীর বাহিরে থেকে আসা লোকজনের মধ্যেই করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে। কিন্তু এখন যারা শনাক্ত হচ্ছেন তাদের কোন ট্রাভেল হিস্টোরী (ভ্রমণকাহিনী) নেই। তারা স্থানীয়ভাবেই সংক্রমিত হয়েছেন।

পৌরবাজারসহ আশপাশের হাট-বাজার ঘুরে দেখা গেছে, করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু দিকে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানা হলেও এখন মানুষের মাঝে কমেছে সচেতনতা। প্রায় বেশিরভাগ মানুষের মুখেই নেই মাস্ক। যদিও কারো কারো মুখে থাকলেও তারা নাক-মুখের নিচে নামিয়ে রাখছেন সুরক্ষা মাস্ক। সামাজিক দূরত্ব দূরে ঠেলে গাদাগাদি করা হচ্ছে বিভিন্ন দোকানপাটসহ, মাহিন্দ্র ও ব্যাটারিচালিত রিকশা-ভ্যানে। পুরো শহর থাকছে এখন লোকে-লোকারণ্য। আর গ্রামের মোড়ে মোড়ে চায়ের দোকানে মানুষের সচেতনতা আরও কম। মাস্ক ছাড়াই ঘুরে বেড়াচ্ছেন তারা।

এদিকে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রোধে বিকাল ৪টার পর দোকানপাট বন্ধ রাখতে জেলা প্রশাসক নির্দেশ দিলেও মানছে না কেউ। ফলে রাত ৮ টা পর্যন্ত শহরের বিভিন্ন স্থানে দোকানপাট খোলা থাকছে। এসব এলাকায় জনসমাগম ঘটছে নিত্যদিন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুস সালাম চৌধুরী বলেন, উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মানুষকে সচেতন হওয়ার জন্য বলা হচ্ছে। অহেতুক বাড়ী থেকে বের না হওয়ারও পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। মাঝেমধ্যে ভ্রাম্যমান আদালতও পরিচালনা করা হচ্ছে। তবে সরকারি নির্দেশনাসহ স্বাস্থ্যবিধি না মানলে অবশ্যই আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: