শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮:২১ অপরাহ্ন

ঠাকুরগাঁওয়ে রাস্তায় ধানের চারা রোপণ করে এলাকাবাসীর প্রতিবাদ

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার গড়েয়া কিসমত তেয়ারীগাঁও গোপিকান্তপুর গ্রামের ২ কিলোমিটার চলাচলের একমাত্র রাস্তা নিয়ে ভোগান্তিতে পড়েছে আট শতাধিক পরিবার।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রবিবার (৯ আগস্ট ২০) দুপুরে স্থানীয়রা কাচা রাস্তাটি সংস্কার না হওয়ায় ধানের চারা রোপন করে প্রতিবাদ জানান।

এলাকাবাসী জানান, এই এলাকায় ৫ হাজার মানুষ বসবাস করি কিন্তু চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি বেহাল দশা, এই রাস্তার কারনে আমরা কোন মালামাল হাট-বাজারে নিয়ে যেতে পারি না। এমনকি রোগী নিয়ে আমরা মহাবিপদে পড়ে গেছি, গর্ভবতী এক মহিলাকে গত ২৬ জুলাই রাতে লাশ নেওয়া খাটিয়ায় করে পাঁকা রাস্তা পর্যন্ত নিয়ে গিয়ে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদরে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এলাকাবাসী আরও জানান, একটি স্ট্রোকের রোগী বর্তমানে ঠাকুরগাঁওয়ে ভর্তি আছে তাকেও লাশের খাটিয়ায় করে নিতে হয়েছে। বর্তমানে এই রাস্তা দিয়ে গাড়িতে করে দশ বস্তা ধান নিয়ে গড়েয়া হাটে পৌঁছাতে সময় লাগে ৩ থেকে ৪ ঘন্টা।

নাম না প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি বলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান কোন কাজ করে না। এলাকার কোন বিচার সালিশে ওনাকে পাওয়া যায়না। ইউনিয়নের রাস্তা- ঘাট অবস্থা খুবই খারাপ স্থানীয় ইউপি মেম্বারকে বললে তিনি বলেন, আমার কাছে কোন বাজেট নাই সব বাজেট চেয়ারম্যনের কাছে আপনারা চেয়ারম্যানকে বলুন।

এব্যপারে ইউপি সদস্য বেলাল হোসেন বলেন, এই এলাকায় দুই হাজার একর জমির আবাদ ও ফসল এই একটি রাস্তা দিয়ে আনা নেওয়া করা হয়। ব্রিটিশ শাসনের পর থেকে এই এলাকায় কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি, ১৯৮৮ সালে দশ ফিট পানির নিচে রাস্তাটি তলিয়ে গিয়েছিলো এবং ২০১৭ সালে ৪ ফিট পানির নিচে রাস্তাটি তলিয়ে যায়।

এবিষয়ে গড়েয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ রেজওয়ানুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, রাস্তায় ধানের চারা রোপন বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। তবে রাতে ফেসবুকে দেখেছি কিছু মানুষ রাস্তায় ধানের চারা রোপন করছে।

ফেসবুকে জানার পরে ব্যবস্তা নিয়েছেন কিনা সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখন রাবিশ (ইটের খোয়া, বালু মাটি) পাওয়া যায় না।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি