শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৪৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
গাজীপুর প্রেসক্লাবে মাসুদুল হক সভাপতি, মাহতাব সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত রেল লাইনে পাথর নেই, মারাত্নক ঝুকি নিয়ে চলাচল করছে ট্রেন ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিহ্মোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় দেশে পরিবেশ বান্ধব কৃষি ও শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের আহবান বোপমা সভাপতির হাতীবান্ধায় প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণ মামলার মূল আসামী শাহিন গ্রেফতার সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বরিশালে আ.লীগের বিক্ষোভ মিছিল খেলাপি বৃদ্ধির শীর্ষে ২০ ব্যাংক বিমানবন্দরে ভক্তদের উদ্দেশ্যে যা বললেন শাকিব খান বরিশাল শেবাচিমে অধ্যক্ষের কার্যালয় ঘেরাও করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ তেলের দাম বাড়ায় ব্যবসায়ীরা সুযোগ নিচ্ছেন: বাণিজ্যমন্ত্রী

আইয়ুব রানার বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে সমাবেশ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :: অনলাইন প্রেস ইউনিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও অর্ধসাপ্তাহিক সুবাণী’র সম্পাদক আইয়ুব রানার বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা প্রত্যাহার ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবীতে সমাবেশ ও গণস্বাক্ষর কর্মসূচী অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা ১১ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন অনলাইন প্রেস ইউনিটির প্রতিষ্ঠাতা মোমিন মেহেদী। বক্তব্য রাখেন অনলাইন প্রেস ইউনিটির ভাইস চেয়ারম্যান শান্তা ফারজানা, ডেইলী গাজীপুর-এর সম্পাদক নাসির উদ্দীন বুলবুল, দৈনিক বাঙলার জাগরণ-এর বিশেষ প্রতিনিধি সামসুল আলম জুলফিকার, দৈনিক সময়ের আলো’র বরিশাল প্রতিনিধি হাসিবুর রহমান, অনলাইন প্রেস ইউনিটি নারায়ণগঞ্জের সমন্বয়ক সাজ্জাদ হোসেন খোকন, এ আর রনি, সোহেল খন্দকার, চম্পাবতী এন মারাক, অনন্ত কুমার রায় প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশ ও মানুষের অভিভাবক, তাঁর কাছে সংবাদযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে বিনয়ী অনুরোধ দয়া করে একজন নিবেদিত সংবাদযোদ্ধাকে মিথ্যে মামলা থেকে অব্যহতি দেয়ার ব্যবস্থা করুন।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ১৪ নভেম্বর কালিকৈর প্রেসক্লাব-এর সভাপতি ও অনলাইন প্রেস ইউনিটির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান সংবাদযোদ্ধা আইয়ুব রানাকে বিনা অপরাধে কেবল সন্দেহ বশবতী হয়ে গ্রেফতার করেছিলো। কারণ হিসেবে অবশ্য বলা হয়েছে- আদিবাসী নেতা বীরমুক্তিযোদ্ধা উসিট ম্রং এবং তাঁর স্ত্রী রাখাইন রাজ্যের নারী নেত্রী ম্রারাজা লেইন ওরফে ম্যাম্যা’র সাথে আইয়ুব রানার ফোনে যোগাযোগ ছিলো। যেখানে তিনি নিরলস স্বাধীনতার পক্ষে থেকে বর্তমান মাননীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ. ক. ম মোজাম্মেল হক-এর এলাকা কালিয়াকৈর-এর একটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগেরও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘদিন, সেখানে তাকে বারবার সইতে হয়েছে হামলা এবং মামলার আঘাত।

১৯৯৩ সালে তিনি যেমন সয়েছেন বিএনপি সরকারের নির্যাতন, ২০০১ সালেও সইতে হয়েছে শারিরিকভাবে হামলার আঘাত। আর বর্তমান সরকারের সময়ও তা অব্যহত রেখেছে স্বাধীনতা বিরোধী-ষড়যন্ত্রকারীচক্র। তিনি এই মামলা থেকে অব্যহতি প্রদানের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপিও প্রদান করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি