রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:২৭ অপরাহ্ন

কাবিন ব্যবসায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

নিউজ ডেস্ক :: আজ ২৭ ডিসেম্বর ২০২০, রবিবার সকাল ১০:৩০ ঘটিকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ মেন’স রাইটস ফাউন্ডেশন এর উদ্যোগে কাবিন ব্যবসায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন এডভোকেট মাহবুবুর রহমান সাহেল, (বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট), বাংলাদেশ মেস সংঘের মহাসচিব মোঃ আয়তুল্লাহ, বাংলাদেশ মেন’স রাইটস ফাউন্ডেশনের আন্তর্জাতিক উপদেষ্টা জার্মান প্রবাসী প্রকৌশলী মাজহারুল মান্নান মিয়া, মোঃ মহিউদ্দিন, মাসনুন হাবিব, ইফতেখার হামিদ, মোঃ ফাহিম, মোঃ বারেক, মোঃ মাসুম, মোঃ আনোয়ার হোসেন, মোঃ আনোয়ার হোসেনসহ সারাদেশ থেকে আগত কাবিন ব্যবসায়ে হয়রানীর শিকার ভুক্তভোগী ভাইয়েরা। উক্ত মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন অত্র সংগঠনের চেয়ারম্যান শেখ খায়রুল আলম ও পৃষ্ঠপোষকতায় জার্মান প্রবাসী প্রকৌশলী মাজহারুল মান্নান মিয়া (আন্তর্জাতিক উপদেষ্টা)।

আন্তর্জাতিক উপদেষ্টা মাজহারুল মান্নান বলেন, বর্তমানে কাবিন বাণিজ্যের বলি ৮০% বাঙালি পুরুষ স্বদেশ কি বিদেশ সবখানে খারাপ পরিবার দ্বারা উচ্চ কাবিন করে বিয়ের সময় এর পর ৭ দিনের মাথায় মেয়ে তার পরিবারের কথায় তালাক দিয়ে তার সাজানো কাবিন দাবী করে। এটি পরিকল্পনায় তার পরিবার আবার আরেক বড়লোক ছেলেকে টার্গেট করে কাবিন নেয়। আমার বন্ধু এবং কাজিন এর সাথে এমন হওয়াতে আমি নিজে দেখেছি তাই আমি অবিলম্বে এমন আইন করার দাবী জানালাম, যাতে কনে পক্ষ স্বেচ্ছায় তালাক দিলে কোন কাবিন না দাবী করতে পারে, তাহলে অনেক পুরুষ বাঁচবে বলে আশা রাখি।

সবশেষে চেয়ারম্যান সাহেব তার বক্তব্যে বলেন, দুষ্ট নারীরা বিয়ের নামে কাবিনের ব্যবসা করে নিরীহ পুরুষদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে, অথচ এদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। ব্যবসায় পুঁজি লাগে এবং লাভ লোকসানের ঝুঁকি থাকে কিন্তু অনেক দুষ্ট নারীরা বিনা পুঁজিতে কাবিনের ব্যবসা করে পাঁচ বছরে কোটিপতি হয়েছে। পবিত্র কোরআনের সূরা বাকারার আয়াত নং-২২৯ অনুসারে যদি কোন স্ত্রী তার স্বামীর কাছ থেকে মুক্ত হতে চান তবে তাকে কোন কিছুর বিনিময়ে হতে হবে, যা তার মোহরানা অতিরিক্ত হবে না।

তাই ইসলাম অনুসারে দেখা যায় স্ত্রী কর্তৃক স্বামী ক্ষতিগ্রস্থ হলে স্ত্রী স্বামীকে ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য। কিন্তু আমাদের দেশীয় আইন অনুসারে স্ত্রী কর্তৃক স্বামীকে তালাক প্রদান করা হলেও স্বামীকে দেনমোহর প্রদান করতে হয়, যা ইসলামের সঙ্গে পুরোপুরি সামঞ্জস্যপূর্ণ নয় (সূত্রঃ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, যুগান্তর)। তাই আজ এই মানববন্ধন থেকে দাবী জানাচ্ছি স্ত্রী ডিভোর্স দিলে দেন মোহরের সমপরিমাণ টাকা ক্ষতি পূরণ দিতে হবে এবং কাবিন ব্যবসায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি। এই আইন কার্যকর করা হলে দুষ্ট নারীদের দেন মোহর ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাবে। তিনি আরো বলেন, এক শ্রেণির ভয়ঙ্কর প্রকৃতির নারী বিভিন্ন ছলে বলে কৌশলে পুরুষদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলে মামলা মোকদ্দমা দিচ্ছে, ধন-সম্পদ ও জমি জমা হাতিয়ে নিচ্ছে।

আবার একটি চক্র বিদেশে প্রতিষ্ঠিত করার কথা বলে সহজ সরল বেকার পুরুষ যুবকদের বিদেশে নিয়ে দাসের মতো শারীরিক ও মানসিক, দৈহিক ও হয়রানী করে বেড়াচ্ছে। কিন্তু নারী সন্ত্রাসী দিয়ে শান্তি প্রিয় পুরুষ ঘর-বাড়ি তথা এলাকা ছাড়া করছে। আত্মমর্যাদা ও সামাজিক এবং লোক লজ্জার কারণে অনেক সম্মানিত বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ প্রকাশ্যে মুখও খুলছে না। আরেক প্রকৃতির নারী বিয়ের তথ্য গোপন করেন কুমারী সেজে পুরুষদের সাথে প্রতারণা করছে। তাই বহু বিবাহ প্রতারণা রোধে বিবাহ রেজিষ্ট্রেশন পদ্ধতি ডিজিটাল চাই।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি