রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম
শিবালয়ে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠিবাড়ি খেলা অনুষ্ঠিত লঞ্চের দড়ি ছিঁড়ে ৫ জনের মৃত্যু : আসামিদের তিন দিনের রিমান্ড ঈদের দিনে সদরঘাটে দুর্ঘটনায় ঝরল ৫ প্রাণ সৌদির সাথে মিল রেখে নোয়াখালীর ৪ গ্রামে ঈদ উদযাপন নোয়াখালীতে দুর্বৃত্তরা ঘর আগুনে পুড়ে দিয়েছে, ১০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি সুবর্ণচরে মানব কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে হতদরিদ্র ও অসহায়দের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ  ঢাকা আরিচা মহাসড়কের মসুরিয়ায় নামে এক অজ্ঞাত ব্যাক্তি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চাটখিলে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ সংবাদপত্রে ছুটি ৯-১৪ এপ্রিল : নোয়াব বিকেলে প্রো-ভিসি নিয়োগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন, রাতেই স্থগিত

ভারতীয় হকির কিংবদন্তি বলবীর সিং আর নেই

নিউজ ডেস্ক : প্রয়াত হলেন ভারতীয় হকির কিংবদন্তি বলবীর সিং। যিনি বলবীর সিনিয়র নামেও পরিচিত ছিলেন। ৯৫ বছর বয়সে তিনি মারা গেলেন। গত দুই সপ্তাহ ধরে তিনি বয়সজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন।

৮ মে তাঁকে মোহালির হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। তিনি ভেন্টিলেশনে ছিলেন। সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর। গত বছরের জানুয়ারিতে ব্রঙ্কিয়াল নিউমোনিয়াতে ভোগার জন্য ১০৮ দিন হাসপাতালে থাকতে হয়েছিল তাঁকে। তিনি রেখে গেলেন কন্যা সুশবীর ও তিন পুত্র কানওয়ালবীর, করনবীর, গুরবীরকে।

১৯৪৭ থেকে ১৯৫৮, এই কয়েক বছরের বর্ণময় ক্যারিয়ারে তিনি ৬১টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছিলেন। গোল করেছিলেন ২৪৬, যে সংখ্যা অবাক করে দেওয়ার মতো। ১৯৪৮, ১৯৫২ ও ১৯৫৬ অলিম্পিকে সোনাজয়ী ভারতীয় দলের ফরোয়ার্ড ছিলেন তিনি। ১৯৫২ হেলসিঙ্কি অলিম্পিকের ফাইনালে তিনি একাই পাঁচ গোল করেছিলেন। নেদারল্যান্ডসের বিরুদ্ধে ভারত জিতেছিল ৬-১ ফলে। অলিম্পিক ফাইনালে কোনও ব্যক্তির সবচেয়ে বেশি গোলের রেকর্ড এটাই। যা এখনও অক্ষত।

তাঁর নেতৃত্বে ১৯৬৮ মেলবোর্ন অলিম্পিকে সোনা জিতেছিল ভারত। সেবার সোনা জেতার পথে ৩৮ গোল করেছিল ভারত। কোনও গোল হজম করতে হয়নি। তবে ১৯৪৮ লন্ডন অলিম্পিকে সোনা জেতা ছিল সবচেয়ে মধুর। স্বাধীন দেশ হিসেবে এটা ছিল ভারতের প্রথম প্রতিযোগিতা। ফাইনালে ইংল্যান্ডকে ৪-০ হারায় ভারত। সেই স্মৃতি সারা জীবন অত্যন্ত প্রিয় ছিল তাঁর। ১৯৭৫ সালে মালয়েশিয়ায় হওয়া বিশ্বকাপে তাঁর কোচিংয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ভারত। তারপর আর বিশ্বকাপ জেতেনি ভারত।

জীবনে অনেক পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। ১৯৫৭ সালে পান পদ্মশ্রী। ২০১৫ সালে তাকে মেজর ধ্যানচাঁদ লাইফ টাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কার দেওয়া হয়। আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি ২০১২ সালে তাঁকে বেছে নেয় ‘আইকনিক অলিম্পিয়ান’ হিসেবে। একমাত্র ভারতীয় ও এশিয়ার একমাত্র পুরুষ হিসেবে এই সম্মান পেয়েছিলেন তিনি।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: