বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৫৯ অপরাহ্ন

সৎ সঙ্গ ফাউন্ডেশনের আলোচনা সভা

সাকুরুল আলম মিলন : গত রোববার গজারিয়া উপজেলার বালুয়াকান্দি গ্রামে বিকাল ৩ টায় সৎ সঙ্গ ফাউন্ডেশনের নারী নেত্রী মাকসুদা বেগমের সভাপতিত্বে আলোকিত মানুষ হবো, মানুষ গড়বো, সমাজ পরিবর্তনের মাধ্যমে শান্তি প্রতিষ্ঠা করব এই স্লোগানকে সামনে রেখে অপসংস্কৃতি, সামাজিক অবক্ষয়, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে করণীয় শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিতছিলেন সৎ সঙ্গ ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় নিবার্হী কমিটির সাধারণ সম্পাদক সামসুল আলম জুলফিকার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, মেঘনা উপজেলা শাখা আহবায়ক, মেঘনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি, দৈনিক সংবাদের স্থানীয় প্রতিনিধি মোঃ আবদুল মালেক ও সাংবাদিক মিজানুর রহমান।

প্রধান অতিথি জুলফিকার তার বক্তব্যে বলেন, সামাজিক অবক্ষয়ের কারণে বর্তমানে সামাজিক ও রাষ্ট্রিয় শান্তি ধ্বংসের ধারপ্রান্তে। তিনি বলেন সকল ধর্মের মুল বাণী “শান্তি”। অথচ সর্বক্ষেত্রেই আজ চলছে নৈরাজ্য, হতাশা, লুট, সন্ত্রাস, নারী, শিশু নিযার্তন/ধর্ষণ। মানবতা আজ বুলুন্ঠিত। তিনি বলেন, কবি কাজী নজরুল ইসলামের ভাষায় বলতে হয়, “আরতির থালা, তসবির মালা, আসিবেনা কোন কাজে, মানুষ করিবে মানুষের সেবা, আর সব কিছু বাজে”।

তিনি উপস্থিত অংশ গ্রহনকারী নারী, পুরুষ, শিশুদের উদ্দ্যেশ্যে বলেন, সর্বপ্রথম কাজ সন্তানদের প্রতি সার্বক্ষণিক নিরবচ্ছিন্ন দৃষ্টি রাখা। যুব সমাজ মাদকের করাল ঘ্রাসে ধ্বংসের পথে। সন্তানদের সার্টিফিকেট অর্জনের শিক্ষার পাশাপাশি সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে আলোকিত মানুষ হিসাবে গড়ে তুলতে হবে। মানুষ মানুষের জন্য এ শিক্ষা দিতে না পারলে, আলোকিত মানুষ তৈরী করতে না পারলে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় শান্তি প্রতিষ্ঠা সম্ভব নয়। একাজে ব্যর্থ হলে সমাজ ও রাষ্ট্রে সাহেদ, সাবরিনা, ওসি প্রদীপ, এসআই লিয়াকত, কেসিনো কিং সম্রাট, পাপিয়া,সেলিম প্রধান এর মতো বিখ্যাত লুটার, সন্ত্রাসী অর্থ সম্পদ লোভী ক্ষমতাধর অমানুষ এর সিন্ডিকেট তৈরী হবে। আর তারাই হবে এক সময় রাষ্ট্রযন্ত্রের চালিকা শক্তি। ফলে সমাজ ও রাষ্ট্রে নেমে আসবে ঘোর অমানিশা। শান্তি নামক শব্দের হবে নির্বাশন। তিনি বলেন, আসুন আমরা সকলে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে আলোকিত মানুষ গড়ার কাজে প্রতিদিন কিছু সময় ব্যয় করি।

বিশেষ অতিথি মোঃ আব্দুল মালেক বলেন, র্দীঘকাল থেকে সাংবাদিকতা করছি। পেশাগত দায়িত্বের পাশাপাশি বেশীর ভাগ সময়ই মানুষ ও মানবতার কাজে ব্যয় করি। চোখের সামনে কতিপয় কুশিক্ষায় শিক্ষিত মানুষ আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছে। অথচ সার্বক্ষনিক পথে প্রান্তরে সময় ব্যয় করেও অর্থ সম্পদের মালিক হতে পারলাম না। আশাও করিনি। শুধুই স্বপ্ন আলোকিত মানুষ গড়বো, সমাজ পরিবর্তনের মাধ্যমে শান্তি প্রতিষ্ঠা করবো। দেশের সাংবাদিক সমাজের এক সময়ের কর্ণধার দৈনিক বাংলা পত্রিকার “অনিকেত” কলাম লেখক প্রখ্যাত সাংবাদিক কমরেড নির্মল সেন শেষ বয়সে অর্থাভাবে চিকিৎসা করাতে পারেননি।
এমনকি ঠিকভাবে তিন বেলা খাবার জোটেনি। অর্থাৎ তিনি প্রকৃতই একজন আলোকিত মানুষ ছিলেন। তাই আসুন আমরা পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় শান্তির লক্ষ্যে প্রত্যেক গ্রামে আলোকিত মানুষ গড়ার লক্ষ্যে সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচী সফল করি।

সভার সভাপতি মাকসুদা বেগম বলেন, আমরা সকলে প্রতিদিন পারিবারিক কাজের পাশা-পাশি কিছু সময় দিয়ে মানুষ বাছাই ও সদস্য সংগ্রহ অভিযান জোরদার করি।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি