বুধবার, ১৯ Jun ২০২৪, ০৮:৩৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম
মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধু বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থী নির্যাতন প্রতিরোধে মাদরাসা প্রধানদের সাথে পুলিশের মতবিনিময় সভা মালয়েশিয়ায় ১২৩ বাংলাদেশীসহ ২১৪ অবৈধ অভিবাসী গ্রেপ্তার বেনজিরের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ মডেল মির্জা মাহির প্রথম মিউজিক ভিডিও “কিশোরী রোদ” জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এর সাংগঠনিক সম্পাদক আমান ডেঙ্গু জ্বর আক্রান্ত শিবালয়ে ভূমি সেবা সপ্তাহ শুরু উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা রাজশাহী নগরীতে পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ২৫ চৌদ্দগ্রামে ভূমি সেবা সপ্তাহ’র ২০২৪ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন কবে, জানালেন ওবায়দুল কাদের

চা শিল্পে নতুন সম্ভাবনা

নিউজ ডেস্ক :: হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলার বৃন্দাবন চা বাগানে উৎপাদিত নিরাপদ ও বিশেষায়িত গ্রিন ও জিবিওপি টি, চা শিল্পে এক নতুন সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

চট্টগ্রাম চা নিলাম কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত সাম্প্রতিক নিলামে সর্বোচ্চ মূল্যে গ্রিন টি ও জিবিওপি টি বিক্রি করে এ সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়। ওই নিলামে বৃন্দাবন চা বাগানের নিজস্ব তৈরী গ্রিন টি প্রতি কেজি ১ হাজার ৬০০ পঞ্চাশ টাকা ও স্পেশাল জিবিওপি টি প্রতি কেজি ৮শত ৬০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। এমন অভূতপূর্ব সাফল্যে চা শিল্পে দেখা দিয়েছে নতুন উদ্দীপনা।

বৃন্দাবন চা বাগানের ব্যবস্থাপক নাছির উদ্দিন খান জানান, তারা নিরাপদ ও বিশেষায়িত চা তৈরীতে দীর্ঘদিন যাবৎ চেষ্টা চালিয়ে আসায় এই সফলতা পেয়েছেন। নিলামে তাদের বিষমুক্ত নিরাপদ চা সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে।

তিনি বলেন ‘আমরা এই চা উৎপাদনের লক্ষ্যে পরিবেশ বান্ধব বালাই দমন প্রযুক্তি ২০১৮ সাল থেকে ব্যবহার করে আসছি। আমাদের বাগানের পাশাপাশি গতানুগতিক ধারার বাইরে এসে বিশেষায়িত চা উৎপাদনের এই ধারা আরও কয়েকটি বাগানে শুরু হয়েছে। পার্শ্ববর্তী দেশ শ্রীলঙ্কা কিংবা ভারতের মতো বাংলাদেশের নিরাপদ বিশেষায়িত চা’ও নিকট ভবিষ্যতে সমগ্র বিশ্বে সুনাম অর্জন করবে বলে আমরা আশাবাদী।’

তিনি আরও বলেন, আমাদের তৈরী গ্রিণ টি ও বে¬ক টি অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে নিলামে সর্বোচ্চ ধরে বিক্রি হওয়ায় ইতিহাস সৃষ্টি হয়েছে। এমন সাফল্যে বিষমুক্ত নিরাপদ ও বিশেষায়িত চা তৈরীতে আমার আগ্রহ বেড়ে গেল। ভবিষ্যতে বিশাল আকারে চা তৈরীর প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি।
সূত্র : বাসস
এসএ/


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: