মঙ্গলবার, ১৮ Jun ২০২৪, ০৩:০৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে বঙ্গবন্ধু বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত শিক্ষার্থী নির্যাতন প্রতিরোধে মাদরাসা প্রধানদের সাথে পুলিশের মতবিনিময় সভা মালয়েশিয়ায় ১২৩ বাংলাদেশীসহ ২১৪ অবৈধ অভিবাসী গ্রেপ্তার বেনজিরের আরও সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ মডেল মির্জা মাহির প্রথম মিউজিক ভিডিও “কিশোরী রোদ” জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল এর সাংগঠনিক সম্পাদক আমান ডেঙ্গু জ্বর আক্রান্ত শিবালয়ে ভূমি সেবা সপ্তাহ শুরু উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা রাজশাহী নগরীতে পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ২৫ চৌদ্দগ্রামে ভূমি সেবা সপ্তাহ’র ২০২৪ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন কবে, জানালেন ওবায়দুল কাদের

বিহার ও উত্তরপ্রদেশে বজ্রপাতে ১০৭ জনের মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক : ভারতের বিহার ও উত্তরপ্রদেশ রাজ্যে বৃহস্পতিবার বজ্রপাতে ১০৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে বিহারে ৮৩ জনের ও উত্তরপ্রদেশে ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তরের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আগামী ৭২ ঘণ্টায় এই দুই রাজ্যে আরও বজ্রপাত হতে পারে। এ অবস্থায় লোকজনকে ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে আবহাওয়া দপ্তর।

বিহারে মোট ২৩টি জেলায় বজ্রপাতে প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে রাজ্যের উত্তরাঞ্চলের গোপালগঞ্জ জেলাতেই প্রাণহানি সবচেয়ে বেশি, ১৩ জন। অন্য জেলাগুলোর মধ্যে মধুবানিতে ৮ জন, সিওয়ান ও ভাগলপুরে ৬ জন করে এবং পূর্ব চাম্পারান, দরভাঙ্গা, ভাগলপুর ও বাঙ্কাতে পাঁচজন করে মৃত্যুর তথ্য পাওয়া গেছে।

উত্তরপ্রদেশের দেওরিয়ায় বজ্রপাতে প্রাণহানি হয়েছে সবচেয়ে বেশি, ৯ জন। অন্য জেলাগুলোর মধ্যে প্রয়োগরাজে ৬ জন, আমবেদকরনগরে ৩ জন ও বারাবানকিতে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মারা যাওয়া ব্যক্তিদের বেশিরভাগই মাঠে কাজ করার সময় বজ্রপাতের শিকার হয়।

বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নিতিশ কুমার ও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ ইতোমধ্যে বজ্রপাতে মৃত প্রত্যেকের পরিবারকে ৪ লাখ রুপি করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

বজ্রপাতে প্রাণহানির ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এক বার্তায় তিনি বলেছেন, এই দুই রাজ্যের সরকার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে সহায়তা প্রদানে কাজ করছে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: