বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
সুবর্ণচরে ঘূর্ণিঝড় রিমেলের রাতে অসহায় ব্যবসায়ীর দোকান লুট ও উচ্ছেদের অভিযোগ রাজশাহী নগরীতে ৬৬ হাজার ৫১৩ জন শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে নগরীতে পুলিশের অভিযানে সাজাপ্রাপ্ত গ্রেপ্তার ময়নার শেষ কথা” চলচ্চিত্র নিয়ে আসছে ইরা শিকদার চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাচন উপলক্ষ্যে আ’লীগের নেতা কর্মিদের মত বিনিময় সভা সুবর্ণচরে সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগ সাবেক ইউপি সদস্য মাহে আলমের বিরুদ্ধে মানিকগঞ্জের শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত হলেন শিবালয় থানা অফিসার ইনচার্জ রউফ সরকার শহীদ আহ্সান উল্লাহ মাস্টারের শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন বাবুর শপথ – মোবারক হোসেন দেলোয়ার চৌদ্দগ্রামে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যাত্রীবাহী বাস খাদে নিহত-৫, আহত-১৫

জলবায়ু পরিবর্তনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত এশিয়া : ডাব্লিউএমও

জলবায়ু পরিবর্তনে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হয়েছে এশিয়া। আবহাওয়া ও পানিসম্পর্কিত কারণে এই অঞ্চলটির ক্ষতি হয়েছে সবচেয়ে বেশি। জাতিসংঘের আবহাওয়া অধিদপ্তর এক প্রতিবেদনে এমনটিই জানিয়েছে। খবর আল-জাজিরার

মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) এ সংক্রান্ত প্রতিবেদনটি প্রকাশ ডব্লিউএমও। সংস্থাটি বলছে, জলবায়ু পরিবর্তনে ২০২৩ সালে এশিয়ার যত ক্ষতি হয়েছে তা হয়েছিল বন্যা ও ঝড়ে। এ ছাড়া তীব্র দাবদাহেও হয়েছে ক্ষতি।

ডব্লিউএমওর প্রতিবেদনে বলা হয়, জলবায়ু পরিবর্তনে বৈশ্বিক উষ্ণতা বাড়ছেই। তবে, সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা বাড়ছে এশিয়া অঞ্চলে। ২০২৩ সালে অঞ্চলটিতে গড়ে তাপমাত্রা বেড়েছে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ১৯৬১ থেকে ১৯৯০ সালের মধ্যেও গড়ে এতো তাপমাত্রা বাড়েনি অঞ্চলটিতে।

এক বিবৃতিতে বৈশ্বিক সংস্থাটি প্রধান সেলেস্তে সাউলো জানান, ২০২৩ সালে এশিয়ার অনেক দেশ রেকর্ডে উষ্ণতম বছর দেখেছে। এ ছাড়া খরা, দাবদাহ, বন্যা ও ঝড়ের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগও দেখেছে এশিয়াবাসী। তিনি আরও বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন এই ধরনের ঘটনাগুলোর ফ্রিকোয়েন্সি ও তীব্রতাকে বাড়িয়ে তুলেছে।

প্রতিবেদনে ডব্লিউএমও জানিয়েছে, গত বছর এশিয়ায় পানি সম্পর্কিত ৭৯টি দুর্যোগ দেখা গিয়েছে। এর ৮০ শতাংশই ছিল বন্যা ও ঝড়। এসব দুর্যোগে ২ হাজারেরও বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। সরাসারিভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৯০ লাখ মানুষ। দ্য স্টেট অফ দ্য ক্লাইমেট ইন এশিয়া শীর্ষক প্রতিবেদনেটিতে বলা হয়, বন্যাতেই এশিয়ার সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা গেছে।

গেল ৭ সেপ্টেম্বর হংকংয়ে ব্যাপকহারে বৃষ্টিপাত হয়। এক ঘণ্টায় ১৫৮ দশমিক ১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয় যা ছিল ১৮৮৪ সালের পর সর্বোচ্চ। টাইফুন সাওলার জেরেই দ্বীপ ভূখণ্ডটিতে বৃষ্টিপাত হয়।

২০২৩ সালে রেকর্ড তাপমাত্রায় এশিয়ার বরফাচ্ছন্ন পবর্তগুলোর হিমবাহ ব্যাপকহারে গলেছে। বিশ্বের বৃহত্তম পর্বশৃঙ্খ হিমালয় ও হিন্দুকুশ পর্বতমালা স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় তুষারপাত কম হয়েছে। অন্যদিকে, দক্ষিণপূর্ব চীন অনাবৃষ্টিতে খরায় ভুগছে। স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় বৃষ্টিপাত হয়নিও অঞ্চলটিতে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি নিয়ে জানানো হয়েছে প্রতিবেদনটিতে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: