বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৪০ পূর্বাহ্ন

সিংড়ায় হাইওয়ে পুলিশকে পিটিয়ে সিএনজি ছিনিয়ে নিল শ্রমিকরা

নাটোরের সিংড়ার মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন বা থ্রি-হুইলার আটকের ঘটনাকে কেন্দ্র করে কামরুজ্জামান নামের এক হাইওয়ে পুলিশের কনস্টেবলকে মারধর করেছে স্থানীয় সিএনজি চালক ও শ্রমিকরা।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সিংড়ার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় আটককৃত একটি তিন চাকার সিএনজি ছিনিয়ে নেয়া হয়। পরে হাইওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ এনে মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করে দুই শতাধিক সিএনজি চালক ও শ্রমিকরা।

সিংড়া থানার পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, মহাসড়কে তিন চাকার যানবাহন বা থ্রি-হুইলার চলাচল বন্ধে হাইওয়ে পুলিশের সাজেন্ট (উপ-পরিদর্শক) মো. ইস্রাফিল হোসেনের নেতৃত্বে সিংড়ার জোলারবাতা-বাঁশের ব্রিজ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে হাইওয়ে পুলিশের একটি টহল দল। এ সময় অবৈধ ৪টি থ্রি-হুইলার (সিএনজি) আটক করা হয়।

পরে আটককৃত একটি সিএনজি নাটোরের দিকে নিয়ে যাওয়ার সময় সিংড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গতিরোধ করে অন্যান্য সিএনজি চালক ও স্থানীয় শ্রমিকরা। এবং কামরুজ্জামান নামের এক হাইওয়ে পুলিশের কনস্টেবলকে ধাওয়া দিয়ে মারধর করা হয়। ছিনিয়ে নেয়া হয় আটককৃত সিএনজি।

এ সময় হাইওয়ে পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযানের নামে হয়রানির অভিযোগ এনে মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করে স্থানীয় দুই শতাধিক সিএনজি চালক ও শ্রমিকরা। খবর পেয়ে সিংড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অর্ধ শতাধিক সিএনজিচালক বলেন, তারা হাঁস-মুরগী বিক্রয় করে এবং কিস্তির টাকা নিয়ে এই তিন চাকার সিএনজি কিনেছে। এখন যদি সামান্য এই ৫ কিলোমিটার রাস্তায় তাদের চলতে না দেয়া হয় তাহলে তাদের সংসারের সব উপার্জন বন্ধ হয়ে যাবে।

এ বিষয়ে হাইওয়ে পুলিশের সাজেন্ট (এসআই) মো. ইস্রাফিল হোসেন বলেন, হাইকোর্টের নির্দেশনা রয়েছে হাইওয়ের রাস্তায় কোনো তিন চাকার থ্রি-হুইলার বা ইজিবাইক চলবে না। সিংড়ার মহাসড়কের জোলারবাতা-বাঁশের ব্রিজ এলাকা থেকে একটি ইজি বাইক আটক করা হলে তা ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। আমাদের একজন পুলিশ সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়া হয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

সিংড়া থানার ওসি নুর-এ-আলম সিদ্দিকী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেন, দুর্ঘটনা রোধে হাইকোর্টের নির্দেশনা রয়েছে হাইওয়েতে কোনো তিন চাকার যানবাহন চলবে না।

এ সময় সিএনজি চালকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, যদি নাটোর জেলার অন্য কোথায়ও হাইওয়েতে এই যান চলাচল করে তবে এখানেও চলবে নতুবা এই যানবাহন চলতে দেয়া হবে না। আর এর ব্যত্যয় ঘটলে বা কোনো বিশৃংখলা ঘটানোর চেষ্টা করা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি