শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
আবারও ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে সিঙ্গাপুরে চিকিৎসাধীন সাবিনা ইয়াসমিন বিএনপির আন্দোলনে অবশ্যই সরকার পরিবর্তন হবে: নজরুল আগামীতে পেঁয়াজ আমদানি করতে হবে না: প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব বাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমেছে শিবালয়ে রাজ্জাক কে নতুন ঘর তুলে দিলেন শতরুপা ফাউন্ডেশন জামালপুরে দরিদ্র শিশুদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ নোয়াখালীতে দাখিল পরীক্ষায় দায়িত্বে অবহেলা ও নকলে সহযোগিতার অপরাধে ৮ শিক্ষককে অব্যাহতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ চেয়ারম্যান এর লাশ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন ছুটির দিনে জমজমাট বইমেলা, ক্রেতার চেয়ে বেশি দর্শনার্থী সীমান্ত হত্যা বন্ধে হানিফ বাংলাদেশীর প্রতীকী লাশের মিছিল এখন বকশীগঞ্জে

বেনাপোলে গলায় তার পেচিয়ে হত্যা করা এক যুবকের লাশ উদ্ধার

বরিশাল প্রতিনিধি :: বেনাপোলে গলায় ফাঁস দিয়ে নৃশংশ ভাবে হত্যা করা আল -আমিন ওরফে নয়ন (২৮) নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার ( ২৮ শে ডিসেম্বর ) সকালে বেনাপোল পোর্ট থানার দুর্গাপুর গ্রাম থেকে ওই লাশটি উদ্ধার করে। এবং আলামত হিসাবে তার ব্যবহৃত একটি মোবাইল ফোন জব্দ করেছে । নয়ন বেনাপোল স্থল বন্দরের ৩৭ নং শেডে এনজিও কর্মী হিসাবে কাজ করত। এছাড়া সে বাজারের মিশন কম্পিউটার ও একটি কসমেটিক্স দোকানেও কাজ করত বলে জানা গেছে।সে থানার দুর্গাপুর গ্রামের মৃত মিজানের ছেলে ।

নিহতের বোন লাবনী খাতুন জানায় গভীর রাত্রে কে বা কারা তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে বাইরে যায়। তারপর আমরা ঘুমিয়ে পড়ি। এরপর সকালে বিছানায় তাকে দেখতে না পেয়ে ফোনে খোঁজ করতে থাকি। হঠাৎ দেখি বাড়ির পাশে একটি গাছের নিচে সে শুইয়ে আছে। তার কাছে যেয়ে দেখি তার গলায় কিছু পেচিয়ে হত্যা করা হয়েছে। গলায় রক্তের দাগ ছিল। এছাড়া তার মুখের মধ্যে একটি কাপড় দেওয়া ছিল।

স্থানীয়রা জানায় হত্যাকরিরা হয়ত আগে মুখে কাপড় দিয়ে ছিল যাতে সে চিৎকার করতে না পারে। এরপর গলায় তার জাতিয় কিছু পেচিয়ে হত্যা করে। যেহেতু গলায় রক্তের দাগ দেখা যাচ্ছে।
ঘটনাস্থলে বেনাপোল পোর্ট থানা ওসি মামুন খান পরিদর্শন করেছেন।

ওসি মামুন খান বলেন আলামত হিসাবে নয়নের ব্যবহৃত একটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়েছে। এটা তদন্ত সাপেক্ষ বলা যাবে কে বা কারা এ নৃশংশ হত্যা কান্ডের সাথে জড়িত আছে। লাশ উদ্ধার করে যশোর মর্গে পাঠানো হয়েছে।


© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগিতায়: