বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ০৩:৫২ অপরাহ্ন

বাংলাদেশকে ১২ বিলিয়ন ডলার দেবে এডিবি

নিউজ ডেস্ক :: এশিয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) নতুন অংশীদারিত্ব কৌশলপত্রের (সিপিএস) আওতায় আগামী পাঁচ বছরে (২০২১-২০২৫) বাংলাদেশকে ১২ বিলিয়ন ডলার ঋণ সহায়তা, যা গত পাঁচ বছরে ছিল ৯.৬ বিলিয়ন ডলার।

এডিবি মঙ্গলবার একটি ইমেইল বিবৃতিতে বলেছে, নতুন সিপিএস বাংলাদেশকে প্রতিযোগিতা, কর্মসংস্থান এবং বেসরকারি খাতের উন্নয়ন, সবুজ বৃদ্ধি এবং জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা বৃদ্ধি এবং মানব মূলধন ও সামাজিক সুরক্ষা শক্তিশালী করতে সহায়তা করবে।

সিপিএস আগামী পাঁচ বছরে (২০২১-২০২৫) সালে সরকারি ও বেসরকারি বিনিয়োগের মাধ্যমে ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার আকাঙ্ক্ষা পূরণে সাহায্য করবে। এটি করোনাভাইরাস মহামারী থেকে দ্রুত আর্থ-সামাজিক পুনরুদ্ধারে সহায়তা করবে।

এডিবির দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক মহাপরিচালক কেনিচি ইয়োকোয়ামা বলেন, “টেকসই প্রবৃদ্ধি এবং যথাযথ নীতি ব্যবস্থা বাংলাদেশকে উন্নয়নের ভালো ফলাফল অর্জনে সহায়তা করেছে। এগিয়ে যাচ্ছে, দেশের শিল্প এবং রপ্তানি ভিত্তিতে বৈচিত্র্য প্রয়োজন।“

তিনি আরো বলেন, কৃষি পণ্য, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, সহজ ইঞ্জিনিয়ারিং এবং ফার্মাসিউটিক্যালসের মতো উৎপাদন ও রপ্তানি সামগ্রীর বৈচিত্র্য, প্রতিযোগিতামূলক বৃদ্ধি এবং নতুন বাজারে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে, কোভিড-১৯ মহামারী থেকে পুনরুদ্ধারে গুরুত্বপূর্ণ হবে, দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বজায় রাখবে এবং যথেষ্ট কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছে।

এডিবি বাংলাদেশে তার বেসরকারি খাতের কার্যক্রম আরও প্রসারিত করবে এবং অন্যান্য উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে উচ্চস্তরের কো-ফাইন্যান্সিং অব্যাহত রাখবে। ব্যাংকিং খাতের উন্নতি, ব্যবসা ক্ষেত্রে সহজতা, ব্যবসার পরিবেশ এবং বিনিয়োগের পরিবেশ বেসরকারি খাতের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করতে এবং অর্থনৈতিক বৈচিত্র্যকে উন্নীত করতে সহায়তা করবে।

এডিবি জানিয়েছে, দারিদ্র্য কমানোর প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে। বৈষম্য ও দারিদ্র্য কমাতে বিশেষ পদক্ষেপের মধ্যে রয়েছে সরকারের সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির কার্যকর বাস্তবায়ন।

আগামী পাঁচ বছরে বাংলাদেশের লক্ষ্য দারিদ্র্যকে ২০.৫ শতাংশ থেকে ১৫.৬ শতাংশে এবং চরম দারিদ্র্যকে ১০.৫ শতাংশ থেকে ৭.৪ শতাংশে নামিয়ে আনা।

নতুন এডিবি কৌশল তার অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার বাস্তবায়নকে সমর্থন করার জন্য সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সমন্বয়ে প্রস্তুত করা হয়েছিল, যার লক্ষ্য উচ্চ সম্পদ সংগ্রহের প্রয়োজনীয়তা, উৎপাদন ও রপ্তানির বৈচিত্র্য এবং টেকসই নগরায়নের প্রয়োজন।

এডিবি এশিয়া প্যাসিফিক ভ্যাকসিন অ্যাক্সেস সুবিধা এবং অন্যান্য উদ্যোগের অধীনে ভ্যাকসিন ক্রয়ের জন্য ৪০ মিলিয়ন ডলার লোন দিয়ে কোভিড-১ মহামারীর বিরুদ্ধে বাংলাদেশের প্রতিক্রিয়াকে সমর্থন করেছে। সরকার অর্থনৈতিক স্থিতিস্থাপকতা এবং স্বাস্থ্য ও সামাজিক সুরক্ষার জন্য ১ বিলিয়ন ডলার প্রোগ্রাম্যাটিক বাজেট সহায়তার অনুরোধ করেছে, যার মধ্যে ২৫০ মিলিয়ন প্রদান করা হয়েছে এবং বাকি ২০২১-২০২৩ এ অনুমোদনের জন্য প্রস্তুতি চলছে।

আরএমএ/এসএ/

নিউজটি শেয়ার করুন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ বাঙলার জাগরণ
কারিগরি সহযোগীতায় :বাংলা থিমস| ক্রিয়েটিভ জোন আইটি